নোয়াখালীর বার্তা ডটকমঃ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ডাকসুর ভিপি নুরুল হক নুরুসহ ২৫ জনকে পিটিয়ে আহত করেছে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের নেতাকর্মীরা।

২২ ডিসেম্বরের ওই হামলার ভিডিওতে এক উত্তেজিত তরুণীকে লাঠি হাতে দেখা যায়।

তিনি হলেন মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ কেন্দ্রীয় কমিটির ছাত্রী বিষয়ক সম্পাদক ও লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের ছাত্রী বিষয়ক সম্পাদক ফাতেমাতুজ জোহরা রিপা।

তার এমন ঘটনায় রামগঞ্জসহ সারাদেশে ফেসবুক ব্যবহারকারীরা নিন্দার ঝড় তুলছেন।

মঙ্গলবার রাত ৯টার দিকে মোবাইল ফোনে করলে লাঠি হাতে থাকা মেয়েটি রিফা নিজেই ছিলেন বলে নিশ্চিত করেন।

রিফা লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জ পৌরসভার বাঁশঘর এলাকার বাসিন্দা ও রামগঞ্জ মডেল কলেজের অনার্সের ছাত্রী।

সূত্র জানায়, ওই হামলার ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকায় ৮ জনের নাম উল্লেখ ও অজ্ঞাত ৩৫ জনকে আসামি করা হয়েছে।

এর মধ্যে গ্রেফতার তিন আসামিকে ৩ দিন করে রিমান্ডের আদেশ দিয়েছেন ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট (সিএমএম) আদালত। তারা হলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ও মুক্তিযোদ্ধা মঞ্চের একাংশের নেতা আল মামুন, ইয়াসির আরাফাত ও মেহেদী হাসান।

তবে আসামিদের মধ্যে যাদের নাম উল্লেখ করা হয়েছে সেখানে রিফার নাম নেই। কিন্তু মঙ্গলবার দুপুরে শাহবাগ থানায় ডাকসুর ভিপি নুরুল হক নুরুর দায়েরকৃত অভিযোগ পত্রে ৩২ নম্বরে রিফার নাম রয়েছে।

রামগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি কামরুল হাসান ফয়সাল মাল বলেন, রিফা স্থানীয় ছাত্রলীগের রাজনীতিতে সক্রিয় ছিল। সাম্প্রতিককালে সে ঢাকায় গিয়ে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের কেন্দ্রীয় ছাত্রী বিষয়ক সম্পাদকের দায়িত্ব পেয়েছেন। লাঠি হাতে তার ছবিটি আমরা দেখেছি।

প্রসঙ্গত, চলতি বছরের ৬ এপ্রিল রামগঞ্জ উপজেলা শিক্ষক সমিতির একটি অনুষ্ঠানে লক্ষ্মীপুর-১ (রামগঞ্জ) আসনের সংসদ সদস্য আনোয়ার হোসেন খান প্রধান অতিথি ছিলেন। এসময় এমপির সঙ্গে সভা মঞ্চে উঠা ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের নেমে যেতে বলা হয়। সবাই নামলেও নামেনি রিফা। তখন রিফাকেও নেমে যেতে বলা হয়। পরে ফেসবুক লাইভ এসে কান্নাকাটি করে ভাইরাল হন রিপা। বিষয়টি বিভিন্ন গণমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে।