সোমবার, ১৭ জানুয়ারী ২০২২, ০৪:৩০ অপরাহ্ন


শিরোনাম:
নোয়াখালীর সুধারাম মডেল থানার ওসিকে প্রত্যাহার নোয়াখালীতে হচ্ছে পূর্ণাঙ্গ বিমানবন্দর : পর্যটন প্রতিমন্ত্রী চাটখিলে নুরাণী মাদ্রাসায় বার্ষিক পুরস্কার বিতরণ চাটখিলে দক্ষিন ঘাটলাবাগ মোহাম্মদিয়া মাদরাসায় বই ও বার্ষিক পুরস্কার বিতরন সোনাইমুড়ী ইউপি নির্বাচনে ঘোষিত ‘ফলাফল পাল্টে’ নৌকা জেতানোর অভিযোগ সোনাইমুড়ীতে অস্ত্রসহ আটককৃত তিন যুবককে ছেড়ে দেওয়ার অভিযোগে ওসি প্রত্যাহার চাটখিলে নৌকার বিরোধিতায় প্রকাশ্যে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক চাটখিলে স্বতন্ত্র প্রার্থীর ক্যাম্পের আসবাবপত্র পুড়িয়ে দিয়েছে দুবৃত্তরা চাটখিলে আচরণবিধি ভঙ্গ করায় শোকজ হলেন চেয়ারম্যান প্রার্থী আব্দুল্লাহ খোকন নোয়াখালীতে ইউপি নির্বাচনে মসজিদে ভোট কেন্দ্র
নোয়াখালীতে খেলে আফসোস করলেন বিশ্বকাপ তারকা

নোয়াখালীতে খেলে আফসোস করলেন বিশ্বকাপ তারকা

নোয়াখালীর বার্তাঃ প্রথমবারের মতো প্রিমিয়ার লিগের ভেন্যু হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছে নোয়াখালীর শহীদ ভুলু স্টেডিয়াম। হোম ভেন্যু হিসেবে মাঠটি বেছে নিয়েছে নোফেল স্পোর্টিং ও টিম বিজেএমসি। কিন্তু দেশের ফুটবলের সর্বোচ্চ স্তরের জন্য মাঠটি একেবারেই অনুপযুক্ত।

সবুজ ঘাস তো দূরের কথা, মাঠের কোনো অংশে নেই ঘাসই। মাঠ নরম হওয়া দূরের কথা, মাঝখানে আছে ক্রিকেট খেলার পিচ। একটু কৌতূহল দুষ্টি চাইলে খুঁজে পাবে গরুর গোবরও। রিজার্ভ বেঞ্চের খেলোয়াড়দের জন্য ডেকোরেটরের কাপড় ও বাঁশ দিয়ে তৈরি করা হয়েছে বসার জায়গা। মাঠটিকে দেখে মনে হতে পারে বড়জোর কোনো স্কুল বা কলেজের বার্ষিক ক্রীড়া আয়োজন। অথচ নোয়াখালীর শহীদ ভুলু স্টেডিয়ামের এমন মাঠেই চলছে প্রিমিয়ার লিগ ফুটবল।

এ মাঠেই খেলতে হয়েছে বিশ্বকাপ জেতা ফুটবলারকে। আজ সে মাঠে পা পড়েছিল কোস্টারিকার জার্সিতে রাশিয়া বিশ্বকাপ খেলা তারকা দানিয়েল কলিন্দ্রেসের। স্বাভাবিকভাবে বিশ্বকাপ খেলা ফুটবলারের এমন এবড়োখেবড়ো মাঠে খেলার কোনো অভিজ্ঞতা নেই। খেলতে পারেননি স্বাভাবিক খেলাও। ম্যাচ শেষে তাই যারপরনাই ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন বিশ্বকাপ খেলা এই তারকা।

শহীদ ভুলু স্টেডিয়ামকে নিজেদের হোম ভেন্যু হিসেবে বেছে নিয়েছেন নোফেল স্পোর্টিং ক্লাব ও বিজেএমসি। আজ বিজেএমসির বিপক্ষেই অ্যাওয়ে ম্যাচে গোলশূন্য ড্র করে মাঠ ছেড়েছে বসুন্ধরা। একে তো প্রথমবারের মতো পয়েন্ট হারানো। এর সঙ্গে যোগ হয়েছে গ্যালারিতে উপস্থিত থাকা দর্শকদের জন্য ভালো ফুটবল উপহার না দিতে পারার কষ্ট। কলিন্দ্রেসের কষ্টটা মূলত গাঁটের পয়সা খরচ করে মাঠে আসা দর্শকদের জন্যই।

কলিন্দ্রসের ক্ষোভ এখানেই, ‘আপনারা যদি দেশের ফুটবল ও বিপিএলের মান উন্নয়ন চান, এমন মাঠে খেলা বন্ধ করতে হবে। এমন মাঠে পেশাদার মানের ফুটবল খেলা সম্ভব নয়। খারাপ মাঠ খেলোয়াড়দের জন্য খুবই বিপজ্জনক। এই মাঠে খেলে দর্শকদের আনন্দ দেওয়া অসম্ভব। দর্শকেরা টাকা খরচ করে সময় বাঁচিয়ে খেলা দেখতে এসে যদি ভালো ফুটবল না দেখতে পারেন, তাঁরা পুনরায় আসবে না। এমন মাঠে চেষ্টা করেও ভালো ফুটবল উপহার দেওয়া সম্ভব নয়।’

সংবাদটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2021 Noakhalir Barta
Developed BY Trust Soft BD